শুক্রবার, ৪ জুন, ২০১০

shohelgovipur

বুধবার, ২ জুন, ২০১০

চোদন


মেয়েরা যে শুধু চোদন খেয়েই খুশি হয় না, এটা আমি জানি, শুধু মেয়েরাই কেন, ছেলেরাও কি শুধু চোদার জন্যেই বিয়ে করে, অবশ্যই নয়। আমি উলটো দিক থেকে চিন্তা শুরু করলাম, প্রথমে দেখি ছেলেরা কি চায়? ছেলেরা বিয়ে করে চোদার জন্যে, এটা অবশ্যই ঠিক। কিন্তু বিয়ে করলে তো সবাই চুদতে পারে, তাইলে কারো সংসার ভাল টিকে আর কারো সংসার ভাল টিকে না, তাইলে কি যাদের সংসার ভাল টিকে না তাদের বউ কি চুদতে দেয় না। এটা নিশ্চয় ঠিক নয়। তাইলে তাদের মধ্যে নিশ্চয় ভাল সম্পর্ক থাকে না। কেন থাকে না? তারা হয়ত একজন যা চায় অন্যজন তা দিতে পারে না। হয়ত বউ চায় একটু গল্প করতে, একটু ঘুরতে, একটু সময় কাটাতে, কিন্তু তার সামী হয়ত তা করতে পারে না সময়ের অভাবে। অফিস থেকে এসেই ঘুমিয়ে পরে। রাতে খেয়ে দেয়েই বউরে লাগিয়ে আবার ঘুম, সকালে আবার অফিস এবং এভাবেই তাদের দিন যে কিভাবে চলে যায় তারা নিজেও জানে না। হঠাৎ একদিন তারা আবিস্কার করে যে ২০ বছর সময় পার হয়ে গেছে। তখন সে তার বউকে হয়ত আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিয়ে যেতে চায় কিন্তু তাও পারে না। কারন বউ তখন সংসারের কর্মব্যস্ততার ফাঁকে কখন যে তার যৌবন আর তারুণ্যের সময় পার করে এসেছে তা সেও জানে না। তারপর আর তাদের আর কখন বনিবনা হয় না। এর জন্যে যা করার শুরুতেই করা উচিৎ ছিল।আর একটা জিনিস মেয়েরা চায়, তা হল, সংসারের সচ্ছলতা, কথায় আছে, অভাব যখন দরজা দিয়ে আসে, ভালবাসা তখন জানালা দিয়ে পালায়। ইস, আমি যদি আন্টির সব আর্থিক সমস্যা মিটাতে পারতাম। কিন্তু কিভাবে? আমি তো নিজেই কোন income করি না। আন্টিকে কি দিব? যাই হোক তাকে আমি আশসাস দিতে পারি যে, আমার যখনই কিছু হবে তখন আমি তাকে যথাসম্ভব ভাবে help করব।একবার ভাবলাম, ব্ল্যাকমেইল করব, ভাবার পরক্ষনেই তা বাদ দিলাম। কারন জোর করে একবার, দুইবার চোদা যায় কিন্তু ভালবাসা পাওয়া যায় না। নাহ, ছবি তুলে বা ভিডিও করে ব্ল্যাকমেইল করার চিন্তা বাদ। আমি আন্টিকে চিরজীবনের জন্যে চাই, এক দুই দিনের জন্যে নয়। দরকার হলে আন্টিকে আমি বিয়ে করব।ধাম। ধাম। কিরে আলিফ কি করিস? হুড়মুড় করে চেয়ার ছেড়ে উঠলাম। দরজা খুললাম। দেখি আম্মা দাঁড়িয়ে আছে।- কিরে কি করিস, এত বার ডাকলাম, শুনতে পাস নাই। ঘুমাচ্ছিলি নাকি?- না মানে আম্মু, একটা পড়া নিয়ে খুব ভাবতেছিলাম, এইজন্যে খেয়াল করি নাই।- দেখছিস কয়টা বাজে? সাড়ে দশটা। চল তাড়াতাড়ি খেয়ে নে। পড়ে পড়িস। চল এখন।- আচ্ছা চল।এরপর খেয়ে এসে শুয়ে শুয়ে চিন্তা করতে লাগলাম, একটু পরে ঘুমিয়ে পরলাম। রাতে সপ্নে দেখলাম, আন্টি বাসা ছেড়ে দিয়ে চলে যাচ্ছে। লাফ দিয়ে ঘুম থেকে উঠে পরলাম। দেখি পুরো শরীর ঘেমে গেছে। ঘড়িতে দেখি চারটা বাজে। ফ্যানটা জোরে দিয়ে মশারির মধ্যে আসলাম। ঘুম এলোনা। আবার সাত পাঁচ ভাবতে ভাবতে সকাল ছয়টার দিকে ঘুমালাম। সাতটার দিকে আম্মা ডেকে দিল। আমি খেয়ে দেয়ে কলেজে গেলাম। তিনটা ক্লাস ছিল। দুইটা করেই পালালাম। বন্ধুকে বললাম, তুই ক্লাস নোট গুলা তুলে রাখিস, আমি তোর কাছ থেকে পরে তুলে নিব। সোজা বাড়ি চলে আসলাম। আম্মু জিগ্যাসা করল কিরে, আজ এত তারাতারি আসলি যে, শরীর খারাপ নাকি?- না আম্মু, শরীর ভালই আছে, আজকে বাংলা ম্যাডামের শরীর খারাপ তাই আসে নাই, আর তাই এই ক্লাসটাও হবে না, তাই চলে আসলাম।- ও আচ্ছা, ঠিক আছে। যা, রুমে যা। বিকেলে প্রাকটিকাল ক্লাস থাকলে লিখে ফেল।- আচ্ছা আম্মু।রুমে যেয়েই ব্যাগটা ছুড়ে ফেললাম। কাপড় চোপড় change করেই পাশের বাড়ির আন্টি লায়লার কাছে। দেখলাম, দরজাটা খোলাই আছে, শুধু পাল্লা গুলা ভিড়ানো। ঠেলা দিয়ে ঢুকলাম। চিলের চোখ আর বাদুড়ের কান নিয়ে আমার প্রিয় আন্টিকে খুজতে লাগলাম। ডাক দিলাম, অমি কি কর।অমি দৌড়ায়ে আসল। “কি ভাইয়া”।- তোমার আম্মু কই?- আম্মু ঘরে বসে সেলাই করে।- আচ্ছা তুমি যাও আমাদের বাসায় যেয়ে টিভি দেখ গিয়ে।অমি নাচতে নাচতে চলে গেল আমাদের বাসার ড্র‌য়িং রুমে। আমিও সাথে যেয়ে টিভিটা ছেড়ে কার্টুন চ্যনেলটা ছেড়ে দিয়ে আসলাম। ও দেখতে থাকল। ঢিবি ঢিবি বুক নিয়ে আন্টির রুমে গেলাম, দেখি আন্টি একটা চেয়ারে বসে উল্টো দিকে ঘুরে জানালার দিকে তাকিয়ে সেলাইয়ের কাজ করতেছে। আন্টির সিল্কি ঢেউ খেলানো চুলগুলো চেয়ারের পায়া ছুই ছুই করছে। আমি পা টিপে টিপে আন্টির পিছনে গিয়ে দাঁড়ালাম। আস্তে করে আন্টির কাঁধের উপর দিয়ে হাত দিলাম। আন্টি একটু কেঁপে উঠল। ঘুরে তাকাল। আমি একটা সুন্দর হাসি দিয়ে জানালাম, আমি এসেছি, আমি এসেছি তোমাকে চোদার জন্যে। কালকে তুমি আমাকে চুদেছ। আমি আজকে তোমাকে চুদব। আন্টিও হাসি দিয়ে জানিয়ে দিলেন, হ্যা, তোমার চোদা খাওয়ার জন্যেই তো অপেক্ষা করতেছি।- আন্টি, ভাল আছ?- হু বাবা, ভাল আছি।- আমাকে বাবা বলবে না।- তাইলে কি বলব?- আমার নাম আছে, নাম ধরে ডাকবে?- কেন? বাবা বললে কি হয়?- বাবা বললে তোমার গায়ে হাত দিতে খারাপ লাগে।- আচ্ছা, ঠিক আছে সোনা, তোমাকে আলিফ বলেই ডাকব, খুশি তো।- হু, সোনা বলেও ডাকতে পার। তবে বাবা বলতে পারবে না।আন্টি আমার হাত ধরে তার পাশে বসালেন। আমার এক হাতের নিচ দিয়ে হাত নিয়ে আমার পিঠে রাখলেন, আর এক হাত রাখলেন আমার গালে। তারপর আমাকে চুমু দেওয়া শুরু করলেন। কিছুক্ষন পরেই ছেড়ে দিয়ে বললেন- তো বল, আজকে কিভাবে তোমাকে মজা দিব? আজকেও কি তোমার ঐটা চুসে দিব?- নাহ। আজকে তোমার কিছুই করতে হবে না। আজকে যা করার আমিই করব।- একদিনেই কি সব শিখে গেলে?- দেখি, পরীক্ষার ফলাফলই সব বলে দিবে।- আমার ওটা চুসতে পারবে তো?- (আমি মাথা নিচু করে) হু, পারব।- থাক, থাক, তোমাকে আর কস্ট করে মনের মধ্যে ঘ্রিনা নিয়ে চুসতে হবে না।- ঘ্রিনা যে করে না তা নয়, তবে তুমি আমাকে গতকাল যে আদর করেছ তার তো কোন তুলনা হয় না। আমার যত খারাপই লাগুক, আমিও তোমাকে আজ সেই আনন্দ দিয়েই ছাড়ব।- হইছে, তোমাকে আর কস্ট করে কিছু করতে হবে না।- না আন্টি তোমাকে আমি সর্গসুখ দিয়েই ছাড়ব। আমি গতকাল যে মজা পেয়েছি তার কিছুটা হলেও তো তোমার প্রাপ্য। সেটা দিতে আমাকে বঞ্চিত কোর না।- আচ্ছা, এত যখন জেদ ধরছ তখন কর। কিন্তু করার আগে কিছু tips দেই।- ওয়াও, তাইলে তো খুবি ভাল হয়।- হু, মন দিয়ে শোন।- আচ্ছা বল।- আমি হয়ত তোমার জীবনে প্রথম, কিন্তু জীবনের চলার পথে অনেক মেয়ে আসবে, অনেক মেয়ে পাবে তুমি……..- (আন্টির মুখে হাত দিয়ে) অমন কথা বল না আন্টি। আমার শুনতে খারাপ লাগে। তুমি আমার জীবনে না আসলে আমি আর কাউকে বিয়ে করব না আন্টি। (আন্টির বুকে মাথা রেখে) আমি তোমাকে ভালবাসি, আমি আর কাউকে চাইনা। কাউকে না।- (একটু হেসে), আচ্ছা আচ্ছা, হইছে। বুঝছি। আর কান্না কাটি করতে হবে না।আমার দু পাশে হাত দিয়ে আমাকে তার বুক থেকে তুললেন আর বললেন……- শোন, তুমি আমাকে কতটুকু ভালবাস আমি স্পস্ট করে বলতে হয়ত পারবনা। কিন্তু একটা কথা মনে রেখ, মেয়েরা যাকে ভালবাসে তার কাছ থেকেই সন্তান নিতে চায়। আর আমি যে তোমাকে কতটুকু ভালবাসি তার প্রমান তো তুমি পেয়েছ। আমি তোমার কাছ থেকে বাচ্চা নিতে চাচ্ছি। এর চেয়ে বেশি আর কি বলতে পারব। বরং তুমি এখন যেমন করছ, এটা আর কয়েকদিন পর অন্য কোন মেয়ে তোমার জীবনে আসলে হয়ত তুমি ভূলে যাবে। ছেলেরা এক মেয়েতে সন্তুস্ট হতে পারে না। তারা সবসময় নতুন নতুন দেহ খুযে বেড়ায়। আমি মাথা নিচু করে থাকলাম। আমার চোখ দিয়ে টপটপ করে পানি পড়তে থাকল। আন্টি আমার মাথায় হাত বুলিয়ে দিতে বললেন, “আমি জানি তোমার এই কথা শুনতে খুব খারাপ লাগছে, সত্যিই খারাপ লাগছে, কিন্তু আমি প্রমান করে দিতে পারি যে এটা ভালবাসা নয়, এটা তোমার কাছে শুধুই শারিরীক চাহিদা”। আমি ফ্যালফ্যাল করে তার দিকে তাকিয়ে থাকলাম। “কি, অবাক হচ্ছ আমার কথা শুনে, আমি জানি তুমি মিথ্যা কথা বলনা। একটু নিজেকে জিজ্ঞাসা করে বলত দেখি, গতকালের আগেও কি তুমি আমাকে নিয়ে এভাবেই ভাবতে, নাকি শুধু আমার কথা ভেবে ভেবে রাতে তোমার বিছানার চাদর আর ট্রাউজার ভিজাতে?” আমি মুখ হাঁ করে কিছু বলতে যেতেই উনি আমার মুখের উপর হাত রাখলেন, বললেন, “তুমি হয়ত এখন জোর করে মনের বিরুদ্ধে একটা কথা বলতে যাচ্ছ। কিন্তু আমি সেটা তোমার কাছে আশা করব না। নিজেকে জিজ্ঞাসা করে তারপর সত্যি কথাটা বল।” আমি তার কাছে পরাজিত হলাম। আমি বলতে পারলাম না যে তাকে আমি দুই দিন আগেও একি রকম ভালবাসতাম। আমি চুপ করে থাকলাম। একটু সময় বিরতি দিয়ে বললাম, “তারমানে কি আমি তোমাকে ভালবাসি না? আমি তোমাকে যে মন থেকে চাই, এটা কি সত্যি না? আমি কি তোমার শরীরটাকেই ভালবাসি, আর কিছুই না?”- না, তা ঠিক নয়, তুমি আমাকে ভালবাস। আমিও চাই তুমি আমাকে ভালবাস। কিন্তু এখন যে আছে তোমার মাঝে তা শুধু আবেগ আর মোহ,এটা যদি ভালবাসা হত তাহলে আমি সবচেয়ে খুশি হতাম। কিন্তু আমি চাইনা আমার জন্যে তোমার জীবনটা নস্ট হোক, আমি চাই তুমিও খুব সুন্দর একটা মেয়েকে বিয়ে করে সুখে শান্তিতে তোমার জীবনটা পার কর।- কিন্তু কোন মেয়ে কি তোমার মত করে আদর করতে পারবে?- পারবে না কেন? অবশ্যই পারবে। প্রথম প্রথম হয়ত পারবে না, কিন্তু একটু শিখিয়ে নিতে পারলে সব মেয়েই পারবে। মাথায় যদি একটু বুদ্ধি থাকে আর তোমাকে যদি মন থেকে ভালবাসে তাইলে অবশ্যই পারবে। আর এই যে বললে আদর করার কথা, এইটাই তুমি ভালবাস, আমার মনকে নয়।আমি তার কথা শুনে খুব অবাক হলাম। কিভাবে উনি আমার মনের সব কথা অকপটে বলে যাচ্ছেন আর আমি প্রতুত্তরে কিছুই বলতে পারছি না। আমি বললাম,- এটা যদি আবেগ মোহ হয় তাইলে ভালবাসা কাকে বলে?- ভালবাসাকে কখনো শারিরীক সম্পর্কের সাথে তুলনা করলে তুমি সত্যিকারের ভালবাসা কি বুঝতে পারবে না। একটা মানুষকে তুমি ভালবাস যখন তার চেহারা, ফিগার বা ধন-দৌলত তোমার কাছে তোমার কাছে অর্থহীন মনে হবে। সবসময় সে কিসে খুশি হয় সেটা তোমার মাথায় ঘুরবে। নিজে কস্ট করে হলেও তাকে একটু সুখ দেওয়ার চেস্টা করবে। তুমি যদি কিছু কর তার ভাল লাগার জন্যে করবে, নিজের জন্যে নয়। তার ভাললাগাকে প্রাধান্য দিবে আগে। সেই ব্যক্তি তোমার কাছে মুখ্য হবে, তুমি নিজে নও। তবে আমি আপ্রান চেস্টা করে যাব তোমার সত্যিকারের ভালবাসা পাওয়ার জন্যে।আমি তার কথা শুনে খুব অবাক হলাম, কোথায় আমি তাকে ধরে রাখার জন্যে চেস্টা করব উল্টা উনিই আমাকে ধরে রাখার চেস্টা করতেছেন।- কিন্তু তুমিও তো আজকে আমাকে হয়ত বলতেছ, দুইদিন পরেও যে এমনটিই থাকবে তা কিভাবে প্রমান করবে?- ভালবাসা কখন প্রমান করা যায়না, কিন্তু তুমি যদি তাও চাও আমি তাও দিতে রাজি আছি, বল তুমি কি চাও।আমি আমতা আমতা করতে লাগলাম। কি বলব আমি। কি চাইব উনার কাছে। উনি তো তার সম্ভ্রম দিয়েই দিয়েছেন। উনার কাছে আমার আর চাওয়ার কি আছে।- একটা জিনিস চাইতাম কিন্তু তুমি কি তা দিতে পারবে?- তুমি আমাকে এখন বিয়ে করতে চেওনা। ঐটা আমার পক্ষে দেওয়া সম্ভব না। কারন আমরা একটা সমাজে বসবাস করি, এখানকার নিয়ম কানুন আমাদের মেনে চলতে হয়। এমন কিছু চাও যেটা দিতে আমার সমস্যা হবে না। মনে রেখ ভালবাসা শব্দের অর্থ হচ্ছে বিশসাস। কি করলে তোমার বিশসাস অর্জন করতে পারব তাই বল?- আমি কখোনই তোমার কাছে এমন কিছু চাইব এটা আশা করিনাই, আর তাছাড়া আমার বলতেও কেমন যেন লাগতেছে। নিজেকে খুব ছোট মনে হচ্ছে। আমি বলতে পারব না।হঠাৎ করে উনি আমার ধোন ধরে ফেললেন। আমিও reflex এ উনার হাত ধরে ফেললাম। উনি বললেন, “তারাতারি বল, নাইলে কিন্তু ছাড়ব না।”- তাইলে তো আমি কখনোই বলবনা।উনি এরপর আমাকে ধাক্কা দিয়ে শুইয়ে ফেলে দিলেন। চেয়ার ছেড়ে লাফ দিয়ে উঠে আমার দুই পাশে দুই পা দিয়ে হাটু গেড়ে বসে পড়লেন আমার তলপেটের উপর। আমার দুই হাত ধরে আমার কানের কাছে মুখ নিয়ে আসলেন। “বল, আমার কাছে কি চাও, বল তাড়াতাড়ি, নাহলে কিন্তু তোমার অবস্থা আজকে সত্যি সত্যি খারাপ করে ছাড়ব, কালকে আর আসতেই চাইবে না”। এই বলতে বলতে আমার কানের লতিতে আলতো করে কামড় দিলেন। আমি শুড়শুড়িতে খিলখিল করে হেসে উঠলাম। কিন্তু উনি ছাড়তেই চাইলেন না। আমিও আর থাকতে পারছিলাম না। আমি অনেক কস্টে অথবা উনার একটু ঢিল দেওয়াতেই একটা হার কোনভাবে মুক্ত করেই উনার কোমরে কাতুকুতু দেওয়া শুরু করলাম। উনি আর থাকতে না পেরে আমার দুই হাত ছেড়ে দিয়ে আমার উপর শুয়ে পড়লেন।আমি উনার পিঠের উপর দুই হাত দিয়ে শক্ত করে ধরলাম, নিজের বুকের সাথে বুক লাগিয়ে একটা মোচড় দিয়ে উনাকে ফেলে দিলাম আমার নিচে। এখন আমি আছি উনার উপর, উনার দুই পায়ের ফাঁকে আমার দুই পা, উনার বুকের উপর ভর করে আমার বুক। উনি আর আমি দুইজনি হাঁপাতে লাগলাম।পাঠকগণ আপনারা নিশ্চয় খেয়াল করেছেন, আমি উনাকে তুমি করে বলা শুরু করে দিয়েছি। উনি বললেন, “এই, বলনা, তুমি আমার কাছে কি চাও”?“আমি তোমাকে সারাজীবন সবসময়ের জন্যে আমার বুকের নিচে রাখতে চাই”।“কি পারবে আমার এই ইচ্ছাটুকু পুরন করতে” এই বলে উনার কানের কাছ থেকে মুখটা উঠালাম।- আমারো তো ইচ্ছা করে তোমার বুকের নিচে থাকতে সোনা, কিন্তু কিভাবে সম্ভব। একটা উপায় বল?- আমি জানিনা, তুমি বলেছ, আমাকে বিয়ে করতে পারবে না, ও কে, বিয়ে কর না। কিন্তু একটা ব্যবস্থা কর যাতে তোমাকে আমার বুকের নিচে রেখে আমি ঘুমাতে পারি প্রতিদিন।- এই, তুমি কি আমার ছবি চাচ্ছ নাকি?- কেন, আমি চাইতে পারি না?- (হাসতে, হাসতে) ওরে দুস্টু শয়তান, তোর মনে এই মতলব ছিল। এইটুকু কথা মুখ ফুটে বলতে পারলিনা কেন?- বলতে খুব ভয় হচ্ছিল, যদি তুমি রাগ কর।যদি তুমি আমার সাথে রাগ করে আর কথা না বল।- তো আমার ছবি নিবি এতে রাগ করার কি আছে?- আমি তোমার খোলা বুকের ছবি নিব। আমাকে চুমু দিচ্ছ এই সবের ছবি নিব।- কিন্তু কেউ যদি দেখে ফেলে তাইলে তো সর্বনাশ হয়ে যাবে, এরকম ছবি উঠালেও প্রিন্ট করাব কেমনে?- হু, তা ঠিক। তাইলে কি করা যায়, তুমিই বল।- আমি শুনেছি কম্পিউটার থেকে প্রিন্ট করানো যায়, কিন্তু ভাল প্রিন্টারের তো অনেক দাম।- কম্পিউটারেরও তো অনেক দাম। এটা কে কিনে দিবে? একটা কম্পিউটারের দাম তো প্রায় পঞ্চাশ হাজার টাকা।- একটা উপায় আছে অবশ্য।- কি?- আব্বা বলেছে, আমি যদি খুব ভাল একটা ইউনিভার্সিটিতে ভাল সাবজেক্টে চান্স পাই তাইলে আমাকে একটা কম্পিউটার কিনে দিবে।- ওয়াও, তাইলে তো ভালই হয়।- হু, ভাল তো হবেই। টাকা তো আমার বাপের যাবে। তোমার তো আর যাবে না। ভাল হবে না তো কি?- তুমি আমাকে এভাবে খোঁচা দেবে, এটা আমি আশা করিনি। শুধু টাকার জন্যে আজকে আমার এই পরিণতি।- দেখ আন্টি, আমি তোমাকে কস্ট দিতে চাইনি। এমনি মুখ ফস্কে বের হয়ে গেছে, আমাকে মাফ করে দাও, প্লিজ।আন্টি অন্য দিকে মুখ ঘুরিয়ে রাখলেন। চুপ করে থাকলেন। উনার চোখের দিকে তাকিয়ে দেখি, উনার চোখ দিয়ে টপটপ করে পানি ঝরছে।আমি উনার গালে একটা চুমু দিলাম। তারপর উনার চোখে চুমু দিলাম। চুমু দেওয়ার সময় উনার চোখের পানির উপর চুমু দিয়ে বললাম, “ওমা, তোমার চোখের পানিও দেখি নোনতা”। তাও কোন কথা নেই। এবার আমি উনার উপর থেকে উঠে বসলাম।বসে উনার পা ধরলাম। “সরি আন্টি, আমাকে মাফ করনা, ভুল হয়ে গেছে তো, কি মাফ করবে না, দাড়াঁও, তুমি মাফ না করে কই যাও আমিও দেখব।” এই বলে আমার দুই হাত আস্তে আস্তে উপরের দিকে উঠানো শুরু করলাম। যতই উঠাই ততই উনি কেঁপে কেঁপে উঠছেন। আমার হাত উনার হাঁটু পেরুলো।আমি শাড়ি সহ তুলছি। কিন্তু উনার চেহারা ভাবলেশহীন। এইবার আমি হাত তুলতে তুলতে উনার উরু স্পর্শ করলাম। তাও কোন কথা নাই।উনার শাড়িও উঠে গেছে। নাহ এভাবে নয়। কোথাও একটু ভুল হচ্ছে। হঠাৎ করে উনার হাটুর নিচে একটা চুমু, তারপর হাটুর ঠিক নিচে, তারপর তারপর হাটুর উপরে। তারপর শাড়ির ভিতরে আমার মাথা ঢুকিয়ে দিলাম। একবার এই পাশের উরুতে চুমু দেই তো আর একবার ওইপাশে। এইভাবে চলতে থাকল। স্পস্ট বুঝতে পারছি, উনি প্রত্যেকটা চুমুতে কেঁপে কেঁপে উঠছেন। যতই উপরে উঠছি ততই কাঁপুনির পরিমান বাড়তে থাকল। কিন্তু উনার হাত মুখ নিস্ক্রিয়। উনি কিছু বলছেননা, হাত দিয়েও কিছু করছেননা। এইবার আমি ঘ্রিনা সব ফেলে দিয়ে উনার উপত্যকায় একটা চুমু দিলাম। আর উনি থাকতে পারলেন না। দুই পা এলিয়ে দিয়ে অনেকটা ফাঁক করে দিলেন। আমারো মুখ দিতে সুবিধা হল। হালকা একটা ঘাম টাইপ এর গন্ধ পেলাম, নরম কোমল clitoris টাতে মুখ দিলাম। প্রথমে হালকা চুমু, পরক্ষনেই চুমুর স্থায়িত্ত বাড়তে থাকল। পাঁচ সাত বার চুমু দেওয়ার পর আমার ঘ্রিনা ভাব টা পুরো কেটে গেল। কোন বাজে গন্ধও পেলাম না, কোন বিশ্রী সাদও পেলাম না। তাই এবার তার দুই জংঘার নিচ দিয়ে দুই হাত দিয়ে পাছাটা নিজের দিকে নিয়ে clitoris টা মুখে পুরে জোরে চুমু দিয়ে চোষা শুরু করলাম। মোটামুটি দশ সেকেণ্ডও যেতে হল না, আন্টির মুখ থেকে একটা আ-আ-হ শব্দ পেলাম। আমি ইচ্ছা করে শাড়ির নিচ থেকে মুখ তুলে এনে তার চেহারা দেখার চেষ্টা করলাম। উনি এক হাত দিয়ে আমার চুল ধরে অন্য হাত দিয়ে শাড়ি তুলে আমার মাথাটা টেনে আবার চেপে ধরলেন তার উরুসন্ধিতে। আমি তার দাসে পরিণত হলাম। চুক চুক করে খেতে লাগলাম তার গিরিখাত থেকে বয়ে যাওয়া গঙ্গার সুধা। ততক্ষনে আমার মুখ তার clitoris থেকে নিচে নেমে এসেছে।উনার যোনির উপর মুখ দিয়ে চুসছি আর উনি বিভিন্ন প্রকার অদ্ভুত সব শব্দ করে যাচ্ছেন। কিছুদিন আগে এক ছাত্রীর physics খাতায় দেখেছিলাম, শব্দ কাকে বলে এর উত্তর লিখেছে এরকমঃ “কোন কিছু উপর থেকে পড়ে গেলে বা জোরে আওয়াজ হলে যে শব্দ হয় তাকে শব্দ বলে।” ঐ ছাত্রীর কাছে যেমন শব্দ কাকে বলে এর সঠিক উত্তর জানা না থাকায় এমন সঙ্গা লিখেছে তেমনি আমারও ঐ আন্টির উচ্চারিত শব্দের কোন সঠিক আভিধানিক অর্থময় শব্দ না থাকায় আমিও ঠিক ব্যাখা করতে পারছি না। তবে এ সব কিছুকে একসাথে যে শিৎকার বলে এইটা জানি। যতই সময় যেতে থাকল ততই উনার শব্দের মাত্রা লগারিদমিক স্কেলে বাড়তে থাকল। একসময় এমন হল যে আমার ভয় হল দরজার বাইরে যদি কেউ থাকে তো নির্ঘাত সেই ব্যক্তি এই শিৎকার শুনতে পাবে।আমি একটু ক্ষান্ত দিলাম।উনি বললেনঃ থেম না, থেম না, প্লিজ, এখন না।আমি অনেক কস্টে মাথা তুললাম, তুলে বললাম, একটু আস্তে শব্দ কর আন্টি, কেউ শুনতে পেলে সর্বনাশ হয়ে যাবে। আন্টি অনেক কস্টে আচ্ছা বলে শাড়িটা হ্যাচকা টান দিয়ে বুকের উপর উঠিয়ে নিলেন এবং তারপর আমার মাথাটা ধরে আবার চেপে ধরলেন তার অনাবৃত অংশে। উনি যে অনেক কস্টে আস্তে আস্তে শিৎকার করছিলেন তা আমি বেশ বুঝতে পারলাম। একটু পরে জবাই করা মুরগির মত বার কয়েক থরথর করে কেঁপে উঠলেন, উনার শরীর ধনুষ্টংকার রোগীর মতন বাঁকা হয়ে গেল। আমার মাথার উপর তো তার হাত দিয়ে তো চেপে ধরা আছেই। তার কোমর অন্তত পক্ষে বিছানা থেকে এক ফুট উপরে উঠে গেছে। ক্রিকেট খেলায় এল. বি. ডব্লিঊ হওয়ার সময় যেমন বোলার যেমন চেঁচিয়ে উঠে হাউ ইজ দ্যাট বলে তেমনি উনিও মোটামুটি ওইরকম কিছু একটা বলে চেঁচিয়ে উঠলেন। আমি ঠিক বলতে পারবনা উনি তখন কি বলেছিলেন। তবে এটুকু বলতে পারি ওই শব্দের ডেসিবেল যদি মাপা হয় তাইলে আমাদের দেশীয় ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিমের চেয়ে তা কোন অংশে কম হবে না। উনি খুবই আস্তে আস্তে উনার নিতম্ব নিচের দিকে নামাতে থাকলেন।মাথাটা এখনো দুই হাত দিয়ে ধরা আছে। এক সময় উনার তানপুরা ভুমি স্পর্শ করল। উনি খুব জোরে জোরে হাঁপাচ্ছিলেন। আমি মাথাটা উঠানোর ব্যর্থ চেস্টা করলাম বার দুয়েক। উনি এখনো চেপে ধরেছিলেন। কিছুক্ষন পর ঢিল দেওয়া শুরু করলেন। এক সময় উনার এক হাত দিয়ে আমার মাথায় বুলানো শুরু করলেন।আস্তে আস্তে উনার দুই হাত দিয়ে আমার মাথাটা উপরে তুললেন, দেখলেন আমার মুখে সব লেগে আছে, উনি পরম যত্নে শাড়ির আঁচল দিয়ে মুছে দিলেন। উনার গায়ে শক্তিও ছিল প্রচুর। শুয়ে থেকে দুই হাত দিয়ে আমাকে কাছে টেনে নিয়ে এলেন। আমি আবার উনার বুকের উপর শায়িত হলাম। স্পস্ট দেখলাম, উনার বুক থেকে ঢিপ ঢিপ শব্দ হচ্ছে, উঠানামা তো করছেই। আমাকে আরও কাছে টেনে নিয়ে চুমু দিলেন আমার মুখে। চুমু দিয়ে আমার দুই ঠোঁট চুসতে থাকলেন। এক পর্যায়ে আমি নিজেই উনার ঠোট ছেড়ে দিলাম। উনি একটু অবাক দৃস্টিতে তাকালেন। আমি উনার একটা হাঁটু ধরে দ এর মতন করে ভাঁজ করলাম। উনি বুঝতে পারলেন আমি কি করতে যাচ্ছি। উনি কোন কথা না বলে উনার আর এক পা মেলে ধরলেন। তারপর উনার পিচ্ছিল যৌনাঙ্গে আমি আমার রাজদণ্ড প্রবেশ করালাম। ঘর্মক্লান্ত শরীরে বাতাসের শীতল পরশ পাওয়ার পর কৃষক যেমন আহ করে ওঠে এরকম একটা শব্দ শুনলাম। আজকে উনার সুড়ংগ ভয়াবহ রকম পিচ্ছিল হয়ে গেছিল। আমার উত্থিত আধা ফুট লম্বা বাঁশ দিয়ে তাকে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে বিদ্ধ করা শুরু করলাম। উনি আবার পরম আবেশে দুই চোখ বন্ধ করে ফেললেন। তার দুই পা মাটিতে পোঁতা দুটো লাঠির মতন করে উপরে ফ্যানের দিকে চেয়ে থাকল। আর স্প্রিং এর দুই পাশ বেঁধে মাঝখানে ধরে টেনে ছেড়ে দিলে যেমন হয় তেমনি আমার শরীর দুলতে থাকল। শুধু পার্থক্য হল আমার ক্ষেত্রে কোন ঘর্ষন বা অন্য কোন বাঁধা ছিল বলে দৃষ্টিগোচর হচ্ছিল না। খুব বেশিক্ষন টিকতে এভাবে থাকতে পারলাম না। একটু পরে উনার উপর শুয়ে পড়ে শুধু মাজা নাড়াতে থাকলাম।আন্টি বুঝতে পারলেন যে আমি খুব ক্লান্ত হয়ে গেছি ও একইসাথে চরম উত্তেজনার পথে যাচ্ছি। আন্টি নিজেই আমাকে ইশারায় থামতে বলে পাল্টি খেয়ে উপরে উঠলেন।উঠলেন ঠিকই কিন্তু আমার কোথাও ভর না করে হাঁটুর উপর ভর দিয়ে বসলেন। আমার রাজদণ্ড যোনীবদ্ধ করে একবার কয়েকশ কিলো প্যাস্কেল প্রেশারে চাপ দেন আর একবার ছেড়ে দিয়ে শুন্যের কাছাকাছি প্রেশার তৈরি করেন। নরম, গরম, পিচ্ছিল পরিবেশে প্রচণ্ড চাপের তারতম্য হওয়ায় টর্নেডো, সাইক্লোন, কালবৈশেখি সব কিছুই শুরু হয়ে গেল। উনি হাঁটুর উপর ভর করে ছিলেন বলে আমিও দুই হাত দিয়ে তার কোমর ধরে নিচ থেকে বৈঠা মারতে থাকলাম তার নদীতে। অচিরেই দুই কুল ছাপিয়ে বন্যা এল। এবার রহিম তো কোন ছার, আমি বনের রাজা টারজানের মতন করে চিৎকার করে উঠলাম, প্রবল বেগে আসা পানির ধাক্কায় উনি একটু উপরের দিকে উঠে থাকলেন। আমার অবস্থাও ধনুকের মতন হয়ে গেল। চোখ বুজে কিছুক্ষনের জন্যে চুপ করে থাকলাম। উনি এ সময় আমার বুকের উপর মাথা রাখলেন। আমি এতক্ষন খেয়াল করিনি উনি কখন যে উনার বুক অনাবৃত করেছেন। আস্তে আস্তে চোখ খুললাম। দেখি উনার সিল্কি চুলগুলো আমার মুখে যত্রতত্র পড়ে আছে।আমি উনার পিঠে হাত বুলালাম কিছুক্ষন। আমার রাজদণ্ড আমের মোরব্বা হয়ে বের হয়ে আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করলাম। তারপর উনাকে আস্তে পাশে সরিয়ে দিয়ে বসলাম তার পাশে। এক পর্যায়ে উনার স্তনবৃন্তদয় মিনিট দুয়েক চুসে দাঁড়ালাম। উনার দুই হাত ধরে তুলে ঠোটে চুমু দিয়ে বললাম, চলেন গোসল করে আসি।

ভাবী



মুন্নির মা। সম্পর্কে ভাবী। প্রায়ই আসতেন, আমরাও যেতাম। এই মহিলাকে চিরকাল দেখেছি শাড়ীটা ব্লাউজের দুই বুকের মাঝখানে ফেলে রাখতে। ফলে ব্লাউজের ভেতর পুরুষ্ট স্তনদুটি বেশ পরিস্কার দেখা যেত। ব্রা পরতেন না। আমি তখন নাইন টেনে পড়ি। ছোট ছিলাম বলে কাপড়চোপড় আমার সামনে সামলে রাখতেন না বোধহয়। ওনার নগ্ন স্তনও দেখেছে অনেকবার। ওনার মেয়েকে ব্লাউস উল্টিয়ে দুধ খাওয়াতেন আমার সামনেই। আমি উঠন্ত যৌবনে তখন। সেই পুরুষ্ট স্তন দেখে উত্তেজিত। দুধ খাওয়ানোর সময় নানান উছিলায় কাছে গিয়ে দেখতাম কমনীয় স্তন যুগল। মাঝে মাঝে বাচ্চার মুখ থেকে বোটাটা সরে গেলে আমি জুলজুল করে তাকিয়ে দেখতাম খয়েরী বোঁটার সৌন্দর্য। মনে মনে কত কল্পনা করেছি আমি তার স্তনের বোঁটা চুষছি। তখনকার বয়সে উনি আমার প্রিয় যৌন ফ্যান্টাসী ছিলেন। আমি কল্পনা করতাম। আমাকে দেখলেই বলে উঠতো-অরুপ ভাই, এসেছো? বসো-ভাই কোথায়-উনি তো দোকানে-তাহলে যাই-না না বসো, চা খাও-চা খাব না-তাহলে দুধ খাবা?-আরে আমি কি বাচ্চা নাকি-শুধু কি বাচ্চারা দুধ খায়? বড়রা খায় না?-আমি জানি না-কেন জানো না, মেয়েদের দুধের দিকে তাকালে তো চোখ ফেরাতে পারো না।-যাহ-আমি মুন্নিকে দুধ খাওয়ানোর সময় তুমি সবসময় তাকিয়ে থাকো আমার বুকের দিকে। আমি জানি-কই না না, এমনি তাকাই-এমনি এমনি? নাকি খেতে ইচ্ছে করে, সত্যি করে বলো-যাহ, কী বলেন-এত লজ্জা কেন অরুপ ভাই। খেতে ইচ্ছে করলে বলো না-ইচ্ছে করলেই কী খাওয়া যায়-যায়, আমি আছি না? তোমাকে আমার খুব পছন্দ।-জানি, তাহলে?-তোমাকে আমি দুধ খাওয়াবো, আসেন দরজাটা লাগিয়ে, মুন্নী এখন ঘুমে। বাসায় আর কেউ আসবে না-হি হি হি আপনি এত ভালো ভাবী
তারপর আমি এগিয়ে যাই। ভাবী আমাকে পাশে বসায়। ভাবীর বয়স ২৫-২৬ হবে, আমার ১৪-১৫। আমার গা কাপছে ভেতরে ভেতরে উত্তেজনায়। কখনো কোন নারী এরকম সুযোগ দেয়নি আমাকে। ভাবী সোফায় বসে গায়ের আঁচল খসিয়ে দিল। আমার সামনে ব্লাউসের কাটা অংশ দিয়ে স্তনের উপরিভাগ ফুলে আছে। উপর দিকের বোতামটা ছেড়া। ব্রা পরেনি। ভাই বোধহয় ব্রা কিনে দেয় না, উনাকে তেমন ব্রা পরতে দেখি না। এবার উনি পট পট করে টিপ বোতামগুলো খুলে দিল। দুটি আম যেন ঝুলে আছে আমার সামনে। আমি আম দুটো ধরলাম দুহাতে। নরম। চাপ দিলাম। তুলতুলে সুখ অনুভব করলাম। এরপর বোঁটা ধরলাম। বড় বড় বোঁটাগুলো। দুধে ভরপুর দুটো স্তন। আমি জোরে টিপা দিলাম একটা। তারপর আবার, শুরু করলাম উদ্দাম টিপাটিপি। ভাবী কামনায় অধীর হয়ে উঠছে। আমার মাথাটা ধরে স্তনের কাছে নিয়ে আসলো--তুমি সাবধানে চোষো, দুধ বেশী হয়ে গেছে। তুমি কিছুটা খাও-আচ্ছা-আহ, আস্তে আস্তে। কামড় দিও না।-ঠিক আছে।আমি চুষতে চুষতে দুধ খেতে লাগলাম। মুখ ভর্তি দুধ। মিষ্টি মিষ্টি। ভাবী হাসছে। তারপর এক হাতে আমার প্যান্টের বোতাম খুলছে। কিছুক্ষনের মধ্যে আমাকে পুরো নেংটো করে ফেললো। আমি ভাবীর কোলে শুয়ে দুধ চুষছি, আর ভাবী আমার শক্ত লিঙ্গটা নিয়ে হাতে টিপাটিপি করছে। আমার খুব আরাম লাগছে। একটুপর ভাবী আমাকে নীচে নামিয়ে দিল। আমি ফ্লোরে শুয়ে আছে ভাবী দুধ দুটো নিয়ে আমার মুখে ধরলো, আমি শুয়ে শুয়ে খাচ্ছি। এর মধ্যে ভাবি একটা চালাকি করছে যা তখনো বুঝিনি। ভাবী আমার কোমরে উপর বসে পড়েছে। আমি টের পেলাম আমার লিঙ্গটা ঠাপ করে গরম কিসের যেন ছেকা খেল। মুখ থেকে দুধ সরিয়ে দেখি ভাবীর যৌনাঙ্গে আমার লিঙ্গটা ঢুকে গেছে। সেই যোনীদেশের গরম গরম তরলের স্পর্শ পাচ্ছে আমার শক্ত অঙ্গটা। আমি কি করবো বুঝতে পারছি না। কাজটা ভালো হলো না মন্দ হলো তাই জানিনা। কিন্তু খুব আরাম লাগছে। আমি নীচ থেকে চোদার ভঙ্গীতে ঠেলা দিতে থাকলাম। ভাবীও কোমর নাচাচ্ছে আর ঠাপ মারছে। আসলে আমি ভাবীকে চোদার কথা ভাবিনি কখনো, দুধ খাওয়াতেই সীমাবদ্ধ ছিল কল্পনা। কিন্তু ভাবী আমাকে না বলে চুদে দিল আজ।-তুমি এবার আমার উপরে ওঠো।-তুমি এটা কী করলে ভাবী-তোমার ভালো লাগছে না?-খুব ভালো লাগছে,-তাহলে অসুবিধা কী-না মানে ভাইয়া যদি জানতে পারে-তোমার ভাই তো গত এক বছর আমারে ঢুকায় নায়। তার বয়স শেষ। কিন্তু আমারতো রয়ে গেছে। আমি কী করবো? তাই তোমাকে নিলাম আজকে-তাই নাকি-দেখো কত বেশী ক্ষুধা জাগলে তোমার মতো বাচ্চা একটা ছেলের সোনা লাগাতে হয় আমার। আমি আর কাকে বিশ্বাস করবো। তোমাকেই নিরাপদ পেয়েছি। তোমাকে বাগানোর জন্য তোমাদের বাসায় গিয়ে মুন্নীকে দুধ খাওয়ানোর সময় ইচ্ছে করে ব্লাউজ সরিয়ে রাখতাম এবং বুঝতাম তুমি আমার দুধ দেখতে চাও।-ভাবী, আমি খুব আরাম পাচ্ছি। এখন আমি আপনাকে ঠাপ মারবো-মারো, যত জোরে পার মারতে থাকো। তোমারটা অত ছোট না। আমার ভেতরটা খবর করে ফেলছ। আচ্ছা তোমার কী মাল হয়? ছোট ছেলেদের নাকি মাল বের হয় না।-না, তবে বিছানায় রাতে ঘষাঘষির সময় সামান্য পিছলা পিছলা কী যেন বের হয়-ও তোমার মাল হয়নি তাহলে। তুমি কনডম ছাড়াই চোদো। কোন ঝামেলা নাই।প্রায় ১৫ মিনিট ঠাপ মারার পর চনুর ভেতর চিরিক চিরিক একটা সুখী অনুভুতি হলো। তারপর আমি দুর্বল হয়ে শুয়ে পড়লাম ভাবীর শরীরের উপর। চনুটা নরম হয়ে বের হয়ে এল। ভাবী আমাকে পাশে শুইয়ে ভেজা চনুটা হাত দিয়ে পরখ করে দেখলো। ওটা ভিজেছে ভাবীর মালের পানিতে। ভাবীর মাল বেরিয়ে গেছে আগেই।-তুমি হাত মারো?-হাত মারা কী-চনুটা হাতের মুঠোয় নিয়ে এরকম এরকম করে ঘষা-না, আমি বিছানার সাথে ঘষি-ঘষে কী করো-আসলে যখন কোন মেয়ের বুকের ছবিটবি দেখি, বা সামনা সামনি কোন দুধের অংশ দেখি তখন উত্তেজনা লাগে, ঘষতে ইচ্ছে হয়।-তাহলে তুমি আমার দুধ দেখেও ঘষাঘষি করতে?-করতাম-ওরে শয়তান-কী করবো ভাবী, আপনার দুধগুলো এত সুন্দর-শোনো, এখন থেকে বিছানায় ঘষাঘষি করবা না, হাত মারবা না, খুব বাজে অভ্যেস। মেয়ে একটা দেখলে অমনি হাত মারতে বা ঘষাঘষি করতে হবে নাকি-আচ্ছা, আর ঘষবো না-এখন থেকে যত ঘষাঘষি করা লাগে,আমার সাথে করবা।-ওরে ব্বাপস। বলেন কী-জী, আমি তোমাকে সব সুখ দেবো-যখনই তোমার এইটা খাড়া হবে, উত্তেজনা লাগবে আমার বাসায় চলে আসবা, আমার ভেতর ঢুকিয়ে ঘষাঘষি করবা-ঠিক আছে,-লক্ষী দেবর আমার। আসো আবার খাড়া করো তোমার রাজাকে।

শনিবার, ২২ মে, ২০১০

চুদাচুদি



বড় দুধের মেয়েদের আমার অপছন্দ ছিল। আমি সবসময় কচি দুধ খুজি। কিশোরী মেয়েদের দুখ আমার সবসময়ের প্রিয়। কিন্তু ব্যতিক্রম ঘটলো এই মেয়েটার ক্ষেত্রে। আমার বিদেশীনি কলিগ মিংলিন। বাংলাদেশ অফিসে কাজ করে। আমার কাছাকাছি ওর টেবিল। ওকে প্রথম যখন দেখি অদ্ভুত লেগেছিল। মোটাসোটা গোলগাল বিশাল স্তনের একটা মেয়ে। ওর দিকে তাকালে প্রথমেই নজরে পড়বে ওর বিশাল দুটো দুধ। ইচ্ছে করেই সবসময় এমন পোষাক পরবে যাতে স্তন দুটো বেরিয়ে আসে কাপড় ছেড়ে আরো ৬ ইঞ্চি সামনে। ওর মতো এত সুন্দর করে কাউকে স্তন প্রদর্শন করতে দেখি নাই। অবিবাহিত ছেলেদের জন্য এটা এক কষ্টকর অভিজ্ঞতা। কারন এটা দেখে দেখে স্বাভাবিক থাকা খুব কঠিন। এমনকি বিবাহিতরাও ঘরে গিয়ে বউয়ের উপর উত্তেজনার রস ঢেলে দেয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে পারে না। অফিসেই হাত মেরে উত্তেজনা প্রশমন করে ফেলতে বাধ্য হয়। আমার মনে হয় আমাদের অফিসের বাথরুমে যতগুলো মাল পড়েছে, বেশীরভাগ মিংলীনের উদ্দেশ্যে। আমারগুলোতো বটেই। আমার লিঙ্গটা অফিসে সারাক্ষন শক্ত হয়ে থাকতো মিংলীনের দুধের কারনে। মাগীটা এমন চোদনপ্রিয় জানলে অনেক আগেই চুদে দিতাম।সে আমার একমাত্র কলিগ চলে যাবার পরও যাকে আমি বেশী মিস করি এখনও। আসলে মিস করি ওর বিশাল দুটো কমনীয় স্তনকে। যেগুলোকে আমি কয়েকবার স্পর্শ করার সুযোগ পেয়েছি। আমি হয়তো চাইলে ওকে চুদতেও পারতাম। সে কয়েকবার সুযোগ দিয়েছিল। কিন্তু আমি সুযোগ নেইনি। বহুবার ইচ্ছে হয়েছে ওর কয়েকটা চমৎকার ছবি তুলে রাখি। তোলা হয়নি। আমি যত মেয়ে দেখেছি, ওর মতো এত পাতলা টি-শার্ট পরতে দেখিনি কাউকে। এত পাতলা যে ওর ব্রা'র ভেতরের সুতার ডিজাইনও বোঝা যেত। ব্রা'র ফুলগুলো তো মুখস্থ হয়ে গিয়েছিল। ওর যত রকমের ব্রা আছে সব আমি জানতাম এই ভাবে দেখে দেখে। ওর পুরো নগ্ন স্তন দেখি নি। তবে কয়েকবার গলার ফাক দিয়ে দুই স্তনের অর্ধেক অংশ দেখার সৌভাগ্য হয়েছে। মাংসগুলো ভারী, ভীষন ভারী, প্রতিটা স্তন কম করে এক কেজি হবে। একদিন বোঁটাটা প্রায় দেখেই ফেলেছিলাম। গোলাপী বোঁটা। ওর আবার স্তনের তুলনায় পাছা ছিল অনেক ছোট। তাই পাছার দিকে আমার নজর ছিল না। খালি দুধগুলো নিয়ে কীভাবে খাবো, কামড়াবো এসব কল্পনা করতাম। এতবড় দুধ আমি কখনো খাইনি।বড় দুধ থলথলে হবার কথা, কিন্তু সে সবসময় একসাইজ ছোট ব্রা পরতো, ফলে এত টাইট হয়ে থাকতো ধরলে শক্ত মনে হবে। আমাকে কয়েকবার পিঠে হাতে স্পর্শ দিয়েছে ইচ্ছে করেই, তখন বুঝেছি কী টাইট দুধগুলো। ব্রা খুলে দিলে অবশ্য কোথায় গিয়ে পড়বে বলা মুশকিল। ওকে এখনো মনে পড়ে আমার অঙ্গ শক্ত হয়ে যায়। মিংলীনকে নিয়ে আমার চোদাচুদির কল্পনা লিখতে গেলে অনেক পৃষ্টা যাবে। আরো কিছু লিখবো পরে। আইলীনের পরে যে মেয়েটা আসে সে তার পুরো বিপরীত। মিংলীনের বিশাল বুকের বিপরীতে এই মেয়েটার বুকই নাই। সমতল বললেই চলে। হয়তো খুব ছোট ছোট বুক, কিন্তু অনেক খুজেও তল পাইনি আমি। কোন মেয়ে দেখলে প্রথমে আমি মেয়েটার বুকের মাপ পরখ করি। এটা অনেক পুরোনো বদভ্যাস। এই মেয়েকে দেখার পর থেকেই আমি সেই রহস্য উদঘাটনে চেষ্টা করে যাচ্ছি। কিছু একটা তো ভেতরে আছেই। কত ছোট সেটা। ছোট স্তন হবার কারনে মেয়েটা কিছুটা বিব্রত বোঝা যায়। তাই সে ফোলা ফোম দেয়া ব্রা পরে। ফলে মনে হয় সুন্দর দুটো স্তন বেরিয়ে আছে। কিন্তু আমি ওকে কাছ থেকে দেখেছি বলে জানি, ওগুলো ফাপা। ওর বুকে হাত দিলে ফোমই পাওয়া যাবে শুধু, দুধ পাওয়া যাবে না। কয়েকবার আমার সামনে উপুর হবার সময় আমি গলার ফাক দিয়ে চোখ দিয়েছি, ব্রা ছাড়া কিছু নেই ভেতরে। সাইজ বড়জোর বড় সাইজের বরই বা জলপাই হবে। বোঁটা আছে কিনা সন্দেহ। হয়তো কিশোরী মেয়ের মতো চোখা বোঁটা আছে মাত্র। ওর নাম পিং। আমি বলি পিং মানে ছোট দুধ, মিং মানে বড় দুধ।মিংলীনের দুধের মতো দীর্ঘকাল আর কোন দুধের প্রতি নজর পড়েনি। আসলে আমার নজরের কোন দোষ নেই, কারন নজর মিংলীনের দুধের না থাকলেও মিংলীনের দুধগুলো নজরের সামনে ঘোরাঘুরি করতো যতদিন সে এখানে ছিল। চোখের সামনে ওরকম প্রায় নগ্ন দুটি স্তন যদি সারাক্ষন আসা যাওয়া করতে থাকে কার মাথা ঠিক থাকে। প্রায় অনেক সময় ওর দুধ আর আমার চোখের মধ্যে দুরত্ব থাকতো দু তিন ফুট। আমি চেয়ারে বসা, আর ও আমার কাছে এসে দাড়িয়েছে। বামপাশে যখন এসে দাড়াতো, আমি মাথাটা একটু হেললেই ওর স্তনে সেটে দিতে পারি। কিংবা ফুটবলের মতো হেড মারতে পারি। বড় দুধ বলে এত টাইট ব্রা পড়তো যে হাটার সময়ও দুলতো না বিন্দুমাত্র। মাঝে মাঝে ইচ্ছে হলো ঘুষি প্রাকটিস করি ওর বিশাল দুগ্ধ ভান্ডারের উপর। ওকে মাঝে মাঝে দেখতাম চেয়ারকে টেবিলের একদম কাছে নিয়ে বসে কাজ করছে। ওর বুকদুটো শরীরের সামনে প্রায় ছ ইঞ্চি সামনে এগিয়ে থাকে। ওভাবে বসার ফলে দুধগুলো টেবিলের কানার সাথে চেপে থাকে। সম্ভবতঃ ও এই চাপটা উপভোগ করে। কারন প্রায়ই ওকে এভাবে বসে কাজ করতে দেখতাম। টেবিলের সাথে ঠেসে ধরা স্তন দুটো টেবিলের কানায় লেগে উপর নীচে দুভাগে ভাজ হয়ে থাকতো। আবার কখনো দেখতাম স্তন দুটো সে সরাসরি টেবিলের উপরে রেখেই কাজ করছে। চিন্তা করা যায় কোন মেয়ে তার ৩৮ডি সাইজের স্তন দুটো ব্রা দিয়ে চেপে রেখে টেবিলের উপর প্রদর্শন করছে? আমি কোন ছুতায় সেই সময় ওর কাছে থাকলে ব্যাপারটা উপভোগ করতাম। জানিনা আমাকে দেখানোর জন্যই করতো কিনা। এখন মিস করি সেই অনুপম সেক্সী দৃশ্যটা। আমি তোমার বিশাল দুধগুলোকে সত্যি মিস করি মিংলীন। যদি কোনদিন সুযোগ হয় তোমাকে ওয়েবক্যামে দেখার সুযোগ নেবো। আমার মনে হয় তুমি বিদেশী ছেলেদেরকে তোমার দুধের শো দেখিয়েছো। আমি সুযোগ নেইনি আগে।মিংলীনের আগে কিমি ছিল ওখানে, কিন্তু ওর দুধ নিয়ে তেমন ভাবিনি, কারন ওর দুধগুলো ছোট, তাছাড়া ও সবসময় ঢেকে রাখতে চাইতো। কিমির স্তন ছিল কমলা সাইজের, তবে মনে হয় ওরগুলো তুলতুলে ছিল। ফলে অতটা বেরিয়ে আসতে চাইতো না। দেখাই যেত না বলতে গেলে। ফলে কামনাও জাগেনি কখনো। তবে ওর প্রতি আমার লুকানো প্রেম-বন্ধুত্ব-অনুরাগের একটা সম্পর্ক ছিল। যদিও কেউ কাউকে বলিনি কখনো।একদিন মিংলীন আমাকে তার রুমে ডেকে নিয়ে গেল ল্যাপটপ চেক করানোর জন্য।-দেখোতো ইন্টারনেট কাজ করছে না কেন?-আচ্ছা দেখিসে আমার পেছনে দাড়ানো। আমি কাজ করছি ওর ল্যাপটপে। ওর রুমে আরো কয়েকবার এসেছি। আমার কেমন যেন শিহরন লাগে। এইরুমে আমার কামনাগুলো জমা থাকে। আমার কামনা শোয়, ঘুমায়, কাপড় বদলায়, নেংটো হয়, এই ঘরের সব আসবাব পত্রকে আমি হিংসা করি। ওরা আমার কামনার নগ্ন শরীরটা নির্বিঘ্নে উপভোগ করে। এদের সামনে মিংলিন ওর বিশাল নগ্ন দুধগুলো ঝুলিয়ে হাটে, আলমিরা থেকে ব্রা পেন্টী বের করে সাইজ মিলায়, রং মিলায়, যেটা ওর স্তনের সাথে বেশী মানানসই সেটা পরে। আহ আমি যদি এই ঘরের একটা আসবাব হতে পারতাম?-এখন দেখো ঠিক আছে,-আরে তাইতো? ধন্যবাদ তোমাকে। তুমি কি এখনই যাবে? আমি কাপড়টা বদলে নিই, তারপর তোমার সাথে যাবো।-আচ্ছা ভালো হবে তাহলে।-তুমি ওদিক ফিরে বসো-আচ্ছা-দেখোতো কোনটা মানায় বেশী (পেছন থেকে ডাকলো সে। আমি চমকে গেলাম পেছন ফিরে। টাং করে উঠলো ধোন সহ পুরো শরীর। খালি ব্রা পরে আমার কামনা দাড়ানো, বুকের কাছে টি-শার্ট ধরে বলছে মানায় কিনা)-গোলাপীটা পরো-তোমার গোলাপী পছন্দ?-তোমাকে গোলাপীতে মানায় ভালো, তোমার ত্বক গোলাপী, তাছাড়া ব্রাও গোলাপী-এই ব্রা টা পুরোনো-আরে না, ঠিকই আছে, এই ব্রা'র ফুলগুলি সুন্দর-তাই নাকি, তোমার কী এই ব্রা পছন্দ?-এটা তোমার ফিগারের সাথে মিশে গেছে।-আমার ফিগারতো ভালো না-কে বলেছে-আমি মোটা-মোটেও না, তোমার যেটুকু মোটা, সেটুকু অপরূপা।-আমার বুকগুলো কী বেশী বড়?-বড়, কিন্তু বেঢপ না। তোমার ব্রার ভেতর সুন্দর সেট হয়ে আছে। এটাই সৌন্দর্য-উফফফ এই কথাটা আমি যাচাই করতে পারছিলাম না। কাউকে জিজ্ঞেস করার উপায় নেই এখানে। আজ শুনে ভালো লাগছে। তোমাকে যে কি দেবো-কিচ্ছু দিতে হবে না। তোমার সৌন্দর্য দেখেছি তাতেই আমি ধন্য।-তুমি আমার সৌন্দর্য আরো দেখবে?-দেখবো-ব্রা খুলবো?-খোলো, তবে তার আগে আমার কাছে আসো।-কেন-আমি তোমার ব্রা টা একটু ছুতে চাই।-ঠিক আছে, তাহলে তুমিই খুলো ব্রা টামিংলীন আমার কাছে এল। আমি ওর ব্রা এর উপর হাত বুলালাম। টাইট করে বাধা স্তন দুটো। দুই হাত রাখলাম দুটি বুকে। চাপ দিলাম মৃদু। সে হাসছে। রাজী। আমি আরো কাছে টেনে নিলাম। পুরো হাত দিয়ে খামচে ধরলাম। মুঠো দিয়ে পিষ্ট করতে লাগলাম। ব্রা'র ফিতাটা খুলে ফেলে ব্রা টা বিছানায় ছুড়ে ফেললাম। আমার সামনে ঝুপ করে বিশাল দুটি স্তন ঝুলে পড়তে গিয়ে থমকে দাড়ালো এবং বোটা দুটি বুলেটের মতো আমার নাকের দিকে তাক করে চেয়ে রইল। সুন্দর, বড়ই সুন্দর মিংলীনের স্তন। বোটা দেখে মনে হলো এটা বেশী চোষা হয় নি। আনকোড়া ভাব আছে। আমি নগ্ন স্তন দুটি মুঠো করে ধরলাম আবার। কচলাতে শুরু করলাম। ইশারায় জিজ্ঞেস করলাম, চুমু দিবো কি না। সে খুশীতে বাগবাগ। বললো খাও, কামড়াও, যা খুশী করো। আমি ওকে বিছানার দিকে নিয়ে গেলাম। আমি বিছানায় বসলাম, ও আমার সামনে দাড়ানো, এবার আমি মুখ দিলাম স্তনে। চুমু খেলাম স্তনবোটা দুটিতে। জিহবা দিয়ে খেলা করলাম বোটার সাথে। মুখে পুরলাম। চুষলাম। যখন একটা একটা করে চুষছি তখন দরজায় নক হলো হঠাৎ। ও চট করে আমার মুখ থেকে স্তনটা টেনে বের করে নিয়ে তাড়াতাড়ি কাপড় পরে ভদ্র হয়ে গেল। আমিও মন দিলাম কম্পিউটারে। যেন কিছুই হয়নি।সেদিন কাজ অসমাপ্ত থেকে গেল। কিন্তু সেদিনের পর থেকে দুজরেনর ক্ষিদে আরো বন্য হয়ে উঠলো। আমাদের আপাতঃ ভালোমানুষিটা অফিসে টিকিয়ে রাখা দায় হয়ে উঠলো। আমাদের চাহনিতে কাম আর কাম। আমরা একসাথে কাজ করতে পারলাম না। পাশাপাশি বসলেও আমার ধোন শক্ত লোহা হয়ে যায়। ওরও ভেতরে ভিজে যায় বোধহয়। একদিন চ্যাটে বললো--অরূপ, তুমি কখন আসবে আবার-আবার যখন তোমার ল্যাপটপে প্রবলেম হবে তখন-আমি তো আর পারছি না।-কাল আসো না প্লীজ।-কাল?-হুমম-কী করে আসবো?-আমার নেটে সমস্যা হবে আবার-আসলে প্রবলেম তো অন্য জায়গায়-হ্যাঁ, তুমি তো জানো তা-আমরা কি কি করবো?-তোমার যা খুশী-তোমার বয়ফ্রেন্ড নাই?-না-এসব আগে কখনো করোনি-উঁমমম.....না-কতটুকু করতে চাও-তুমি যতটুকু করতে পার-আমিতো পুরোটা করতে চাই-তা আমি বুঝেছি সেদিন-কী করে-তুমি একটা বন্য-তাই?-তাই, তুমি সেদিন আমার বাম পাশের বোঁটাটা কামড়ে দিয়েছো-ব্যাথা পেয়েছো?-পেয়েছি, তবে আনন্দের। আমি চাই তুমি আমাকে আরো অনেক কামড় দাও-বলে কী মেয়ে-সত্যি, আমি খুব কাতর হয়ে পড়েছি সেদিনের পর থেকে। আমি তোমাকে পেলে কাঁচা খেয়ে ফেলবো-আমিও-তাহলে আসোনা কেন। আসো-আসবোপরদিন আমি ওর রুমে গেলাম পুরোনো ছুতোয়। একঘন্টা বন্য চোদা খেললাম দুজনে। নেংটো হয়ে ওর বিছানায় শুয়ে দুজনে কামড়ে খামচে একাকার করে ফেলেছি। এমনকি কনডম লাগাতে ভুলে গিয়েছিলাম। মাল ফেলে দিয়েছি ভেতরে। মিংলিন বলেছে অসুবিধা নাই, সে ব্যবস্থা নেবে।


গল্পটি লিখেছেন

মো রায়হান

গোভীপুর মহাজের পাড়া

মেহেরপুর